ধোনির আচরণে আমি হতাশাগ্রস্ত হয়েছিলাম: ফখর জামান

খেলাধুলা ডেস্ক:
Published:  2017-06-29 06:52:15

ধোনির আচরণে আমি হতাশাগ্রস্ত হয়েছিলাম: ফখর জামান

গ্রামের ভোলাভালা ছেলে ফখর জামান এখন পাকিস্তান ক্রিকেটের হিরো। নৌবাহিনী ছেড়ে ক্রিকেটে আসা এই তরুণকে দেখার জন্য এখন প্রতিদিন মানুষের ঢল নামে। সেই ফখর জামান বললেন, চ্যাম্পিয়নস ট্রফির ফাইনালে ভারতের সাবেক অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনির আচরণে তিনি হতাশাগ্রস্ত হয়েছিলেন! ক্যারিয়ারের পঞ্চম ম্যাচ খেলতে নামা ফখর ভারতের বিপক্ষে ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছিলেন। তার ১০৬ বলে ১১৪ রানের ঝড়ো ইনিংসে ৩৩৮ রানের বিশাল স্কোর গড়ে পাকিস্তান।

ক্রিকেট বিশ্বে ধোনি একটি জনপ্রিয় নাম। এমনকী পাকিস্তান অধিনায়ক সরফরাজসহ দেশটির অনেক ক্রিকেটারের প্রিয় আইডল হলেন ধোনি। এমন একজন ক্রিকেটারের বিরুদ্ধে কেন অভিযোগ তুললেন ফখর? আসলে বিষয়টি বেশ মজার। সেঞ্চুরি করার পর বেচারা ফখর আশা করেছিলেন কেউ না হোক, অন্তত তার প্রিয় ক্রিকেটার মহেন্দ্র সিং ধোনি এসে তাকে অভিনন্দন জানাবেন। নিদেনপক্ষে হাততালি দিবেন। কিন্তু ধোনি কিছুই করলেন না! এতেই মন খারাপ হয়ে যায় ফখরের।

তার ভাষায়, 'আমি সেদিন ধোনির আচরণে হতাশ হয়েছিলাম। যখন আমি ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরি করলাম, আশা করেছিলাম উনি করতালি দিয়ে আমাকে অভিনন্দন জানাবেন। কিন্তু তিনি কোনো প্রতিক্রিয়া দেখালেন না। তখন আমি কোহলির দিকে তাকালাম। তিনি মাথা নিচু করে ছিলেন তবে একইসঙ্গে হাততালির মাধ্যমে আমাকে অভিনন্দন জানাচ্ছিলেন। '

চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির উত্তেজনাপূর্ণ ফাইনালে ফখর জামান মাত্র ৩ রানেই প্যাভিলিয়নে ফিরতে পারতেন; যদি জসপ্রীত বুমরাহর বলটি নো বল না হতো! ক্যাচ দেওয়ার পরও রিভিউ নিয়ে বেঁচে যান ফখর। আর সেই নো-বল করে এখন পর্যন্ত নানা ব্যঙ্গ বিদ্রুপের শিকার হচ্ছেন বুমরাহ। তার এই নো বলের ছবি দিয়ে বিজ্ঞাপনও তৈরী করেছে ভারত ও পাকিস্তানের ট্রাফিক পুলিশ।

সেই সময়ের অনুভুতি নিয়ে ফখর জামান বলেন, 'যখন আমি ক্যাচ দিলাম, আমার হৃদয় ভেঙে গিয়েছিল। ফাইনালে আমি কিছু করে দেখাতে চেয়েছিলাম। সেটা না পারার আফসোস আমাকে গ্রাস করেছিল। তবে যখন আম্পায়াররা আমাকে প্যাভিলিয়নে ফেরার পথে থামিয়ে দিলেন, আমার সামনে একটি নতুন আশার আলো জ্বলে উঠল। ভাবছিলাম, বলটি যদি নো বল হয় তবে আজকের দিনটি আমার হবে। আশ্চর্যের বিষয় হলো, শেষ পর্যন্ত আমি সেই সুযোগটা পেলাম। '

লাইভ ক্রিকেট স্কোর