বেনজির দৌলতে সুখী দম্পতি ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী

বিচিত্র ডেস্ক:
Published:  2017-06-21 20:44:13

বেনজির দৌলতে সুখী দম্পতি ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী

নজির গড়েছিলেন তিনি৷ ইসলামি দুনিয়া তথা পাকিস্তানের প্রথম মহিলা প্রধানমন্ত্রী হয়ে৷ প্রাক্তন পাক প্রধানমন্ত্রীর জন্ম হয়েছিল ১৯৫৩ সালের ২১ জুন৷ বেনজির ভু্ট্টোর অনন্য নজিরে ঢেকে গিয়েছে আরও একটি বিষয়৷ আজকের ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে’র সুখী দাম্পত্য জীবনের তিনিই কারিগর!

১৯৭১ সালের যুদ্ধে পরাজয়ের পর তখন পাকিস্তান সদ্য দ্বিখণ্ডিত৷ বিখ্যাত ‘সিমলা চুক্তি’র সময় এক পাক কিশোরীকে দেখা গিয়েছিল প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর সঙ্গে৷ স্বাভাবিকভাবেই সেই কিশোরী মিডিয়া ফোকাস৷ পরাজিত, বন্দি পাকিস্তানের সেনাদের ফিরিয়ে নিয়ে যেতে পাক রাষ্ট্রনায়ক জুলফিকার আলি সিমলায় এসেছিলেন৷ সেই কূটনৈতিক আসরে ছিলেন ভুট্টো কন্যা ভিভিআইপি অতিথি বেনজির৷

সিমলা চুক্তির সময়ে কন্যাকে নিয়ে এসে চমক দিয়েছিলেন ভুট্টো সাহেব৷ ইচ্ছে ছিল মেয়ের রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ গড়ে তোলা৷ সেই লক্ষ্যেই বেনজির ভুট্টোর পরবর্তী গন্তব্য ছিল লন্ডন৷ অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজনীতিক বিষয়ে পাঠরতা সুশ্রী পাক কন্যা সফল হয়েছিলেন৷

১৯৭৬ সালে অক্সফোর্ডের ছাত্রী বেনজির ভুট্টো৷ তাঁর সঙ্গেই পড়তেন সুশ্রী, উচ্চাকাঙ্ক্ষী থেরেসা৷ দুই বান্ধবীর মধ্যে সম্পর্কটা শুধুমাত্র ক্লাসের গণ্ডীর মধ্যে ছিল না৷ দু’জনেই নিজেদের ব্যক্তিগত কথা পরস্পরকে জানাতেন৷ সেই সূত্রে দীর্ঘাঙ্গী থেরেসা-র বিশেষ পছন্দের পুরুষটি কে তা জেনে ফেলেছিলেন বেনজির ভুট্টো৷

ফিলিপ ও থেরেসা মে


অক্সফোর্ডে তখন ছাত্র নেতা ফিলিপ মে৷ তিনি ইউনিয়নের প্রেসিডেন্ট ও কনজারভেটিভ পার্টির উদীয়মান নেতা৷ তাঁকেই পছন্দ করে ফেলেছিলেন থেরেসা৷ অন্তরের গোপন কথা বান্ধবী বেনজিরকে খুলে বলেন থেরেসা৷ স্মার্ট পাকিস্তানি কন্যে বুঝে নিয়েছিল সাগর পারের নীল নয়নার ইচ্ছে৷ দেরি করেনি৷ সটান গিয়ে ফিলিপ মে-র কাছে থেরেসার প্রসঙ্গ উত্থাপন করে৷ দুবার ভাবেনি থেরেসার থেকে দু বছরের ছোট ফিলিপ৷ শুরু হল শতাব্দী প্রাচীন অক্সফোর্ডের রোমান্টিক ইতিহাসের এক পর্ব৷ ১৯৮০-তে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হলেন ফিলিপ ও থেরেসা৷ সেই শুরু দীর্ঘ সময় পার করে দু’জনেই সুখী দাম্পত্য জীবন কাটাচ্ছেন৷ এই মুহূর্তে থেরেসা ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী৷

পড়া শেষে করে লন্ডন থেকে করাচিতে ফিরেছিলেন বেনজির ভুট্টো৷ পরিবারে ঘটেছিল বিপর্যয়৷ জেনারেল জিয়াউল হক দ্বারা সংঘটিত এক সামরিক অভ্যুত্থানে ক্ষমতাচ্যুত হন জুলফিকার আলি ভুট্টো। এক ব্যক্তিকে হত্যার ষড়যন্ত্রে জড়িত থাকার অভিযোগে ১৯৭৯ সালে সামরিক আদালত তাঁকে মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত করে।

বাবার মৃত্যুর পর রাজনীতিতে বিশেষ করে জড়িয়ে পড়েন বেনজির ভুট্টো৷ ১৯৯৩ সালে হন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী৷ পরে পাক রাজনীতির ভবিতব্য যা হয় তাই হয়েছিল বেনজিরের সঙ্গে৷ ক্ষমতা হারিয়ে দেশ ছেড়েছিলেন৷ আট বছরের স্বেচ্ছা নির্বাসন কাটিয়ে ২০০৭ এর অক্টোবরে বেনজির পাকিস্তানে প্রত্যাবর্তন করেন। সেই বছরের ২৭ ডিসেম্বর রাওয়ালপিন্ডির এক নির্বাচনী সমাবেশ শেষে সভাস্থল ত্যাগ করার পর আত্মঘাতী হামলায় নিহত হন বেনজির ভুট্টো। চমকে গিয়েছিল বিশ্ব৷

সংবাদটা পেয়েছিলেন সাগরপারে লন্ডনে থাকা থেরেসা৷ মনে কি লেগেছিল দোলা? যার কারণে তিনি সুখী দম্পতি, সেই ‘প্রাচ্যের কন্যা’ বেনজির তখন অতীত হয়ে গিয়েছেন৷ সময় পেরিয়েছে আর এক দশক৷ বেনজিরের মতোই আজ ক্ষমতার কেন্দ্রে থেরেসা৷ দ্বিতীয় মহিলা ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী হয়ে নজির গড়েছেন তিনিও৷ দুই বান্ধবীর প্রধানমন্ত্রী হওয়া-সেও তো এক নজির৷ কলকাতা২৪

লাইভ ক্রিকেট স্কোর