কর্মক্ষেত্রে বস কে “না” বলার কৌশল!

সারাবাংলা নিজস্ব প্রতিনিধি :
Published:  2017-05-25 08:03:35

কর্মক্ষেত্রে বস কে “না” বলার কৌশল!

ছোট বা বড় কোন মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানী তে কাজ করছেন আপনি, আপনার বসের দেয়া অতিরিক্ত কাজের চাপ অনিচ্ছা স্বত্বেও মেনে নিতে হচ্ছে আপনাকে প্রতিনিয়ত। কিছু সুনির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত আপনার বস আপনার সময়ের অধিকারী, এবং যে কোন সময় তিনি আপনাকে প্রমোশন কিংবা চাকরিচ্যুত করতে পারনে। সুতরাং চাকরি করতে গেলে যে সম্পরকে জানা খুব দরকার তা হল, একটি সুনির্দিষ্ট সময়ের পর কিভাবে বস কে “না” বলবেন?

এভারজবস্ এসব পরিস্থিতিকে সামনে রেখে কার্যকরী কৌশল নিয়ে কিছু টিপস দিয়েছে, যা আপনার পেশাগত জ়ীবনে সহায়তা করবে।

মূল্যায়ন করুনঃ

কোন কাজে না বলার আগে অবশ্যই এর ফলাফল কি হবে তা মুল্যায়ন করুন। আপনার একটি “না” কোম্পানীর কোন আরথিক ক্ষতি করছে বা করবে কিনা তা বিবেচনা করুন।

সু-স্পষ্টতা যাচাই করুনঃ

এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আপনাকে দেয়া কাজটি করতে কি কি সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন তা ব্যাখ্যা করুন, সেই সাথে আপনার অসম্মতি প্রকাশের কারনটিও তাদের জানান।

বস কি চাচ্ছেন?ঃ

আপনার বসের দৃষ্টিকোণ থেকে বিষয় টি যাচাই করার চেষ্টা করুন। কোন কাজ সম্পর্কে আপনার মতামত বা আপনি কি ভাবছেন হয়ত আপনার বস তা জানতে চাচ্ছেন বা আলোচনা করতে চাচ্ছেন। সুতরাং এক্ষেত্রে “না” বলার আগে বিবেচনা করুন।

আদর্শ থাকুনঃ

কিছু বস আছেন যারা সারাক্ষন হ্যা সূচক শুনতে অভ্যস্ত, কিন্তু বেশিরভাগই অভ্যস্ত নন। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই আপনার বস আপনার পরামর্শ জানতে চেয়ে থাকেন এর সুযোগটি কখনই হাড়ানো উচিত নয়।

সময় নিন ঃ

আপনার অতিরিক্ত সময় নেয়া নির্দেশ করবে, আপনি কাজ টি করতে চাচ্ছেন না। আপনার শক্তি এবং দুর্বলতা হাই লাইট করুনঃ কোন কাজের ক্ষেত্রে আপনি দক্ষ আর কোন কাজে দক্ষ নন, তা আপনার বস কে জানতে দিন। সুতরাং আপনার বস যখন আপনার শক্তি এবং দুর্বলতা জানতে পারবেন, অখন আর অযৌক্তিক কাজের দায়িত্ব আপনাকে বর্তাবে না।

কাজের পরিসীমা ব্যাখ্যা করুনঃ

এমন কোন কাজ থাকতে পারে যা হয়ত আপনার জন্য করা কিছুটা অস্বস্তিকর হতে পারে। সাধারণত ধর্মীয় বা ব্যক্তিগত কারণে এটা হতে পারে। আপনার বসকে এই ধরনের সীমাবদ্ধতাগুলি জানতে দিন, ফলে তারা আপনাকে পরবর্তী তে আপনাকে এই কাজের দায়ীত্ব দিবেন না ।

প্রচুর কাজের চাপঃ

আপনি হয়ত বসকে সরাসরি না বলতে পারছেন না, আর একই সাথে নতুন কোন কাজ ও নিতে পারছেন না। জিজ্ঞাসা করুন কিভাবে একই সাথে একাধিক কাজ করতে হয় অর্থাত়্ মাল্টিটাস্কিং যাকে বলা হয়, সরাসরি না বললেও বস বুঝবেন আপনার হাতে অনেক কাজ।

বিকল্প প্রস্তাবঃ

সরাসরি বস কে না বলার পরিবর্তে, কাজটি সম্পন্ন করার অন্য বিকল্প প্রস্তাবসমুহ সম্পরকে আপনার বস কে বলতে পারেন, বস বুঝবেন আপনি কাজ টি করতে চাচ্ছেন না।

সৎ থাকুনঃ

অপ্রীতিকর কে কেউ পছন্দ করেন না, আপনার বস ও পছন্দ করবেন না। সরাসরি তাদের সাথে কথা বলুন, আপনার সমস্যার কথা সরাসরি বলুন। এর জন্য চাই আপনার বসের সাথে খুব ভাল একটি সম্পর্ক গড়ে তোলা, ফলে খুব সহজেই তারা আপনার সমস্যা বুঝতে পারবেন।

অফিসের শেষ সময় অব্দি বসে থাকবেন নাঃ

আপনার কাজ সময়মত শেষ করতে না পারলে, অফিসে মাঝে মাঝে অতিরিক্ত সময় কাটান, যা সবসময় না করাই ভাল। সমস্যা সমাধানের জন্য আপনার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার সাহায্য নিন।

কখনই ভয় পাবেন নাঃ

সত্য কথা বলার জন্য আপনার বস আপনাকে খেয়ে ফেলবেন না, হয়ত খুব সংকোচ বোধ করছেন বস কি বলবেন আপনাকে এই ভেবে কিন্তু মনে রাখবেন, চুপ থাকার চেয়ে সত্য বলা ভাল।

কাজের অগ্রাধিকারকে প্রাধান্য দিনঃ

আপনার দৈনন্দিন কাজ কে আগে প্রাধান্য দিন যা আপনার অবশ্য করণীয়। বস আলাদা কোন কাজের দায়িত্ব দিতে চাইলে আপনার প্রধান প্রধান কাজ সম্পর্কে তাকে জানান।

লাইভ ক্রিকেট স্কোর