কীভাবে খুন করতে হবে স্বামীকে, প্রেমিককে শিখিয়েছিল স্ত্রী

ওপারবাংলা ডেস্ক :
Published:  2017-05-24 05:35:35

কীভাবে খুন করতে হবে স্বামীকে, প্রেমিককে শিখিয়েছিল স্ত্রী

বিচারকের কাছে গোপন জবানবন্দি দিতে চায় বারাসত ‘লাইভ মার্ডার’-এর অন্যতম চরিত্র নিহতের স্ত্রী মনুয়া মজুমদার৷ পুলিশের অনুমান, মনুয়া নিজে বাঁচতেই প্রেমিক অজিত রায়কে ফাঁসিয়ে স্বামীহত্যার কাঠগড়ায় তুলতে চাইছে৷ মেয়ে মনুয়া দিনের পর দিন অজিত রায়ের সঙ্গে পরকীয়া চালিয়ে যাচ্ছে অথচ বাবা-মা কিছুই জানতেন না? যদি সেই ব্যভিচারের কথা তাঁরা জানতেন তাহলে কি বাধা দিয়েছিলেন? প্রেমিকের সাহায্য নিয়ে স্বামী অনুপমকে খুন করার তদন্তে নেমে এমন প্রশ্নই ঘুরপাক খাচ্ছে পুলিশের মনে৷

জানা গিয়েছে, খুনের দিনও নাকি একাধিকবার সহবাস করে মনুয়া ও অজিত৷ মনুয়ার কাছেই বাড়ির ডুপ্লিকেট চাবি ছিল৷ প্রথমে অশোকনগরের বাড়ি থেকে প্রেমিক অজিত বেরিয়ে তার সঙ্গে দেখা করে৷ এরপর দু’জনে একসঙ্গে বাড়িতে ঢোকে৷ মৃত্যু নিশ্চিত করতে বাড়িতে বসেই খুনের খসড়া আরও একবার চূড়ান্ত করে তারা৷ খুনের আগে অনুপমের বেড রুমে শুধুমাত্র শারীরিক সম্পর্কই নয়, হত্যার ট্রায়ালও নাকি দিয়েছিল অজিত-মনুয়া৷ কিভাবে লুকিয়ে থাকতে হবে, ঘরে ঢুকলেই হামলা চালাতে হবে, তার পুরোটাই প্রেমিককে শিখিয়ে দিয়েছিল মনুয়া৷ পরে মনুয়া চলে যায়৷ থেকে যায় অজিত৷

বর্তমানে দু’জনেই পুলিশের হেফাজতে৷ জেরায় মনুয়া কবুল করেছে, অনুপমকে খুনের আগে সে প্রেমিকের সঙ্গে আদিম খেলায় মেতে উঠেছিল৷ খুনের কিছু সময় আগে প্রেমিকের সঙ্গে বসে চূড়ান্ত ছকও তৈরি করে৷ মদ্যপান ও ঘনঘন সিগারেট খায় অজিত৷ ফ্রিজ খুলে ডিম বের করে ওমলেটও বানায়৷ অকুস্থল থেকে মদের বোতল ও প্রচুর পোড়া সিগারেট পেয়েছে পুলিশ৷ মঙ্গলবারও দু’জনকে জেরা করে পুলিশ৷ এদিনও মনুয়া নিজেকে বাঁচাতে মরিয়া প্রয়াস চালিয়েছে৷ সে পুলিশকে বলেছে, অনুপমকে তার পছন্দ ছিল না৷ জোর করে তার বিয়ে দেওয়া হয়েছিল৷ যদিও মনুয়া পাল্টা দাবি করে বলেছে, স্বামী অনুপম ছিল বিকৃত যৌন রুচিতে মগ্ন৷ প্রতিদিনই নানা ধরনের বিকৃত যৌনাচার করতে বাধ্য করা হত তাকে৷ এর থেকে পরিত্রাণ পেতেই অজিতের সাহায্য চেয়েছিল মনুয়া৷ কিন্তু মনুয়ার এই দাবি কতটা সত্যি তা নিয়ে অজিতকে জেরা করবে পুলিশ৷

বারাসতের হৃদয়পুরে অনুপমের বাড়ি৷ মনুয়া পুরসভায় চাকরি করত৷ কাজে তার মন ছিল না৷ দুপুরে সে স্কুটি চালিয়ে বাড়ি আসত৷ প্রতিবেশীরা জানিয়েছেন, স্কুটির পিছনে থাকত এক যুবক৷ তার মাথায় হেলমেট পরা থাকত৷ মনুয়া নিজে হেলমেট না পরে যুবককে হেলমেট পরিয়ে ঘরে ঢোকাত৷ যুবককে যাতে কেউ না চিনে ফেলে তাই হেলমেটে মুখ ঢেকে আনত মনুয়া৷ প্রতিবেশীদের অভিযোগ, একাধিক যুবক আসত৷ টিফিন করার নামে বাড়িতে ঢুকে ওই যুবকদের সঙ্গে শরীরী খেলায় মেতে উঠত মনুয়া৷ প্রশ্ন এখানেই, অনুপমের প্রতি কোনও বিদ্বেষ বা প্রতিশোধ না কি স্রেফ যৌন নেশায় একাধিক যুবকের সঙ্গে বেপরোয়া ফুর্তিতে ডুবে ছিল মনুয়া? সংবাদ প্রতিদিন

লাইভ ক্রিকেট স্কোর