চাকরি খোঁজে আরও বেশী তৎপর হবেন যেভাবে

সারাবাংলা নিজস্ব প্রতিনিধি :
Published:  2017-05-21 05:40:57

চাকরি খোঁজে আরও বেশী তৎপর হবেন যেভাবে

পেশা অনুসন্ধানের অর্থ বলতে বেশীরভাগ মানুষই ধরে নেন বিভিন্ন পত্র–পত্রিকায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি আর অনলাইন চাকরির আবেদনের মাধ্যমগুলোকে। আদতে স্বপ্নের চাকরি খোঁজায় এভাবে কেবলমাত্র অর্ধেক সফলতাই মেলে। শুধু মাত্র প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তির চাকরিসমূহে ঢালাও আবেদন করার মানে দাঁড়ায় আপনি উদ্দেশ্যহীন আবেদন করছেন। এই ধরনের চাকরি খোঁজাকে বলা হয়ে থাকে ‘রিএ্যাকটিভ জব সার্চ’।

অন্যদিকে ‘প্রোএ্যাকটিভ জব সার্চ’ আপনার পেশাগত জীবনের উপর নিয়ন্ত্রন আনতে যেমনি সাহায্য করে তেমনি দিতে পারে পেশা সম্পর্কিত সিদ্ধান্ত নেবার স্বাধীনতা। আপনার পরবর্তী সফল সুযোগ তৈরির জন্য আসুন জেনে নেয়া যাক প্রোএ্যাকটিভ চাকরি খোঁজার পদ্ধতি সম্পর্কিত কিছু খুঁটিনাটি, যা এভারজবস্ বাংলাদেশ আপনার জন্য নিয়ে এসেছে!

‘প্রোএ্যাকটিভ জব সার্চ’ এর সুবিধা এবং অসুবিধা

সুবিধাসমূহঃ

প্রোএ্যাকটিভ চাকরির অনুসন্ধান আপনাকে নির্দিষ্ট পেশা ও কোম্পানির ক্ষেত্রে পছন্দ করার স্বাধীনতা দেয় এবং আপনার চাকরিজীবনের লাগাম ধরতে সাহায্য করে। এই ক্ষেত্রে আপনারও শুধু বসে থেকে সঠিক সময় এবং সুযোগের অপেক্ষায় থাকতে হবে না। প্রতিযোগিতামূলক কোন ক্ষেত্রে আবেদনের জন্য এই পদ্ধতি খুবই কার্যকরী।

অসুবিধাসমূহঃ

প্রোএ্যাকটিভ চাকরি খোঁজা সময়সাপেক্ষ এবং বেশ ভাল চেষ্টা সাধ্য কাজ। এর মানে আপনাকে হয়ত অযাচিত ফোন কল অথবা ইমেইলে বিভিন্ন কোম্পানিতে যোগাযোগ করতে হতে পারে যা অনেকের জন্যই করা প্রায় দূরহ। এক্ষেত্রে সফল হতে হলে অবশ্যই আপনাকে দৃঢ়তার পরিচয় দিতে হবে।

সফল হবার ৪টি মূল ধাপঃ

যদি ‘প্রোএ্যাকটিভ জব সার্চ’ এর জন্য নিজেকে উপযুক্ত মনে করেন তাহলে নিন্মের ধাপসমূহ একটি সফল অনুসন্ধানের ক্ষেত্রে আপনার সহায়ক হয়ে উঠবেঃ

ধাপ ১ খুঁজে বের করুন পছন্দের কোম্পানি

পছন্দের ২০–৩০টি কোম্পানির একটি তালিকা তৈরি করে ফেলুন। আপনার বন্ধু এবং সহকর্মীদের পরামর্শও নিতে পারেন। এভারজবসের সার্চ অপশনটি ব্যবহার করেও আপনি কাজটি আরও সহজেই করতে পারেন। কোম্পানির প্রোফাইল ঘেঁটে মিলিয়ে নিন আপনার আগ্রহের স্থান।

ধাপ ২ অনুসন্ধান বা পুনর্বিচার

যেহেতু আপনার হাতে এখন একটি নির্দিষ্ট তালিকা আছে সেহেতু এখন প্রয়োজন পুনর্বিবেচনার। এভারজবসে আমরা সেটাই করে থাকি। বিভিন্ন ভাবে আপনি আপনার এই অনুসন্ধানের কাজতি করতে পারেন কিন্তু সবচেয়ে কার্যকরী হল নির্দিষ্ট কোম্পানির ওয়েবসাইট ভালভাবে ঘুরে দেখা। পড়ে দেখুন তাদের কোম্পানির বিবরণ এবং যাচাই করুন তাদের সেবা ও পণ্যের মান। তাদের অতীত ইতিহাস এবং সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলো ভালভাবে ঘুরে দেখুন। যত বেশি তথ্য আপনার হাতে পৌঁছাবে তত বেশি আপনি সিধান্ত নিতে পারদর্শি হবেন।

ধাপ ৩ আপনার নেটওয়ার্কের সাহায্য নিন

আপনার বাছাইকৃত কোম্পানিগুলোর তালিকা হয়ে গেলে খোঁজ নেয়া শুরু করুণ আপনারই পরিচিত কেউ সেই সকল স্থানে কর্মরত কি না। আপনার বন্ধুরই কোন আত্মীয় হয়ত সেখানে সিনিয়র ম্যানেজার। মনে রাখবেন কখনই চাকরি দেয়ার জন্য সাহায্যের আশা না করে চাকরি পাওয়ার ক্ষেত্রে পরামর্শ চাইলে বেশি সাহায্য পাবেন। এভারজবস টিপসঃ ধরে নেই , সদ্য স্নাতক পাশ আরিফ প্রথমে বিভিন্ন পত্র পত্রিকা আর অনলাইন জব পোর্টাল গুলোর মাধ্যমে বেশ কিছুদিন ধরেই চাকরির আবেদন করেই যাচ্ছেন। কিন্তু বাদ পরে যাচ্ছেন চূড়ান্ত বাছাই পর্বে এসেও। আত্মীয় আর বন্ধু মহলে নেটওয়ার্কিং থেকে একদিন জানলেন এভারজবস সম্পর্কে। অনলাইনে একটি প্রোফাইল খুলে তিনি আবেদন করলেন কিছু নির্দিষ্ট কোম্পানির জন্যে। কিছুদিন পরেই ইন্টারভিউ হল এবং স্বপ্নের চাকরিটি পেয়ে গেলেন তিনি। মনে রাখবেন নেটওয়ার্কিং অনেক সম্ভাবনার দ্বার খুলে দিতে পারে।

ধাপ ৪ নিয়োগকর্তার সাথে যোগাযোগ করুন

যদি আপনার কোন কোম্পানির সাথে সরাসরি যোগাযোগের উপায় না থাকে তাহলে আশাহত না হয়ে যোগাযোগ করুন কোম্পানির নিয়োগকর্তা অথবা সেখানকার কোন কর্মীর সাথে। কোম্পানির কর্মচারীদের তথ্য,তালিকা ওয়েবসাইট অথবা সামাজিক মাধ্যম থেকে সংগ্রহ করুন। অবশ্যই একটি সংক্ষিপ্ত আত্ন–বিবরণী (বায়ো–ডাটা) তৈরি করুন যা আপনাকে উপস্থাপন করবে এবং পাশাপাশি তাদেরকেও আপনার সম্পর্কিত যথাযত তথ্য প্রদান করবে। সফল প্রোএ্যাকটিভ চাকরির অনুসন্ধানের জন্য চাই নিয়মানুবর্তিতা। তাই নিজের জন্য প্রয়োজনীয় লক্ষ্যমাত্রা স্থির করুন এবং সে অনুযায়ী কাজ করুন। আর সেই জন্যই এভারজবস বাংলাদেশের চাকরির বাজারে তথ্য অনুসন্ধান এবং ‘প্রোএ্যাকটিভ জব সার্চ’ শুরু করার ক্ষেত্রে একটি আস্থার নাম।

লাইভ ক্রিকেট স্কোর